কোরআন শরিফ সংকলন

কোরআন শরিফ সংকলন

কোরআন আরবি শব্দ, এর বাংলা ভাবার্থ একাগ্রতাচিত্তে পাঠ করা বা আবৃত্তি করা। পবিত্র কোরআন শরিফ ঐশী গ্রন্থ, যা ৬১০ খ্রিস্টাব্দে সূরা আল−আলাক্ব এর প্রথম পাঁচটি আয়াত বা পঙ্ক্তি (সাহিত্যিক অর্থ নিদর্শন) দিয়ে শুরু হয়ে ৬৩২ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত দীর্ঘ তেইশ বছর ধরে খণ্ড খণ্ড অংশে হযরত মুহাম্মদ (স.) এর নিকট আরবি ভাষায় অবতীর্ণ হয়।
 

ইসলামের তৃতীয় খলিফা উসমান ইবনে আফ্‌ফান (রা.) সর্বপ্রথম কোরআন সংকলন ও গ্রন্থাকারে প্রকাশ করেন (৬৪৪ খ্রি. – ৬৫৫ খ্রি.), এজন্য তাকে ‘জামিউল কোরআন বা কোরআন সংকলনকারী’ বলা হয়। তবে মুহাম্মদ (স.) জীবদ্দশায় ৪৩ সদস্যের একটি দল গঠন করেন যারা কোরআনের আয়াত লেখা বা সংরক্ষন করতেন। যায়েদ ইবনে সাবিত (রা.) ছিলেন মুহাম্মদ (স.) এর প্রাথমিক ওহী লেখক, আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) ছিলেন প্রথমদিকে ইসলাম গ্রহণকারীদের একজন ও সত্তরটি সূরা সরাসরি মুহাম্মদ (স.) থেকে শিক্ষা পেয়েছিলেন এবং মুহাম্মদ (স.) তাকে কোরআন তেলাওয়াতকারী প্রথম শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছিলেন, উবাই ইবনে কাব (রা.) ছিলেন মদিনার মুসলিমদের একজন এবং মুহাম্মদ (স.) এর ব্যক্তিগত লেখক ও কোরআন বিশেষজ্ঞ। ওমর ইবনে খাত্তাব (রা.) এর পরামর্শে প্রথম খলিফা আবু বকর (রা.) ৬৩৩ খ্রিস্টাব্দে কোরআন সংকলন শুরু করেন। কোরআন সংকলন দলের দশজন প্রশিদ্ধ ব্যক্তি হলেন – ওমর ইবনে খাত্তাব (রা.), উসমান ইবনে আফ্‌ফান (রা.), আলী ইবনে আবু তালিব (রা.), আবু মুসা আল আশ’আরী (রা.), উবাই ইবনে কাব (রা.), আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.), যায়েদ ইবনে সাবিত (রা.), আবু হুরায়রা (রা.), আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.), আবু আল−দারদা (রা.)